আমাদের নিউজ পোর্টাল ভিজিট করুন ...

উন্নয়নবঞ্চিত লাকসামের পাঁচটি গ্রাম

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট: লাকসাম পৌরসভার অবহেলিত ২নং ওয়ার্ডের ৫টি গ্রাম প্রথম শ্রেণীর মর্যাদায় লাকসাম পৌরসভার নাগরিক সুবিধা বাড়েনি পৌর শহরের পাইকপাড়া, ডুরিয়া, বড়তুপা, বাইনছাটিয়া, কুন্দ্রা গ্রাম নিয়ে ২নং ওয়ার্ড গঠিত


সমস্যা আর সমস্যা এখানে। রাস্তা, ড্রেন, গ্যাস বিশুদ্ধ পানির সমস্যা। বিদ্যুতের খুঁটি থাকলেও বাতি নেই। ৫টি গ্রামের মধ্যে মাত্র ২টি পাকা রাস্তা রয়েছে। দীর্ঘদিন কার্পেটিং না করায় রাস্তা দুটির অধিকাংশে ইটের খোয়া নষ্ট হয়ে গেছে। রাস্তার দুই পাশে কোনো ড্রেন নেই। বর্ষাকালে সামান্য বৃষ্টি হলেই ৫টি গ্রামের রাস্তাগুলোতে পানি জমে যায়।

ডুরিয়া দীঘিরপাড়ের রাস্তার বেহাল দশা। রিকশা লোকজন চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে

১৯৮২ সাল থেকে লাকসামের বিভিন্ন স্থানে গ্যাস সরবরাহ করা হয়। দীর্ঘ ৩০ বছরেও এলাকার জনগণ গ্যাস সুবিধা থেকে বঞ্চিত। জ্বালানি মন্ত্রণালয় রেল মন্ত্রণালয়ের রশি টানাটানির কারণে এলাকাতে ঢাকা-চট্টগ্রাম রেললাইনের দোহাই দিয়ে গ্যাস সরবরাহ করা হচ্ছে না।

বর্তমানে গ্যাস সংযোগ বন্ধ থাকায় সমস্যা বেড়েছে। এছাড়া আর্সেনিকমুক্ত বিশুদ্ধ পানির সমস্যা বড় প্রকট। পৌরসভা থেকে এখানে ১৫০টি চাপকল বসানো হয়েছে, যার মধ্যে বর্তমানে অধিকাংশই অকেজো। লো-ভোল্টেজের কারণে ৫টি গ্রামে সন্ধ্যার পর অন্ধকার নেমে আসে


২নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা লাকসাম মনোহরগঞ্জ আসনের সংসদ সদস্য মো. তাজুল ইসলাম, লাকসাম উপজেলা চেয়ারম্যান আলহাজ মজির আহমদ, লাকসাম পৌর মেয়র আলহাজ মফিজুর রহমান, ২নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর খলিলুর রহমান, সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর সুমি আক্তার হলেও উন্নয়ন বঞ্চিত এলাকাবাসী। সন্ধ্যা না হতেই এলাকায় নেমে আসে অন্ধকার।

ডুরিয়া গ্রামের সর্দার আবুল কাসেম ডিলার বলেন, জন জনপ্রতিনিধি ওয়ার্ডের বাসিন্দা। কিন্তু এলাকায় সেরকম উন্নয়ন এখনও হয়নি। আমাদের ওয়ার্ডটি আলোর নিচে অন্ধকার। গত বছরেও ওয়ার্ডের তেমন উন্নয়ন হয়নি।

সমাজসেবক আবু বক্কর মো. জাহেদ বলেন, ২নং ওয়ার্ড বিভিন্ন সমস্যায় জর্জরিত। রাস্তার বেহাল দশা। জাতীয় নির্বাচনের বছর পার হলেও গ্যাস সরবরাহ হয়নি


ব্যাপারে লাকসাম পৌর কর্মকর্তারা বলেন, পৌর শহরের সবস্থানেই উন্নয়ন করতে আমরা আন্তরিক। অর্থপ্রাপ্তি সাপেক্ষে ২নং ওয়ার্ডের সমস্যা সমাধানে পৌর কর্তৃপক্ষ আগামীতে পদক্ষেপ নেবে