আমাদের নিউজ পোর্টাল ভিজিট করুন ...

মনোহরগঞ্জে ডাকাতিয়া নদীর ব্রিজ আড়াই বছরেও হয়নি

মনোহরগঞ্জ প্রতিনিধি: মনোহরগঞ্জ উপজেলার বাইশগাঁও ইউপির বাইশগাঁও-জলিপুর সড়কের ডাকাতিয়া নদীতে নির্মাণাধীন ব্রিজের কাজ আড়াই বছরেও শেষ না হওয়ায় ১১টি গ্রামের মানুষ সীমাহীন দুর্ভোগ পোহাচ্ছে।

জানা যায়, মনোহরগঞ্জ উপজেলার বাইশগাঁও ইউপির একটি জনগুরুত্বপূর্ণ বাইশগাঁও-জলিপুর সড়ক। এ সড়ক দিয়ে উপজেলা সদরে যাতায়াত করে বাইশগাঁও, ইউসুপপুর, নয়নপুর, শ্রীপুর, গোটরা, কেয়ারী, দাদঘরসহ ১১টি গ্রামের হাজার হাজার লোক এবং প্রায় ৯টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা।

এছাড়া ব্যবসায়ীরা এ সড়ক দিয়ে উপজেলা সদর থেকে তাদের মালামাল আনা-নেয়া করে। ওই সড়কের হাজির পুকুরপাড় নামক স্থানে ডাকাতিয়া নদীর ওপর ৭০ লাখ টাকা ব্যয়ে ২০১০ সালের ২৮ এপ্রিল ব্রিজটি নির্মাণকাজ শুরু করে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান মেসার্স আহমদ এন্টারপ্রাইজ। দীর্ঘ আড়াই বছর পার হলেও ব্রিজটির নির্মাণকাজ শেষ হয়নি।

যথাসময়ে ব্রিজের কাজ শেষ না হওয়ায় সীমাহীন ভোগান্তির শিকার হচ্ছে সাধারণ মানুষ। জনদুর্ভোগ নিরসনের জন্য স্থানীয় চেয়ারম্যান আলমগীর হোসেন এবং শহীদ মেম্বারের নেতৃত্বে এলাকাবাসীর স্বেচ্ছাশ্রমে নির্মাণধীন ব্রিজের পাশে একটি বাঁশের সাঁকো তৈরি করে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে নদী পারাপার হচ্ছে মানুষ।

বর্ষা মৌসুমে সাঁকো পারাপারের সময় কয়েক দফা দুর্ঘটনা ঘটলেও নজর কাড়েনি কর্তৃপক্ষের। গত কিছু দিন আগেও জনৈক মহিলা চার বছরের শিশুকন্যা কোলে নিয়ে বৃষ্টি ভেজা বাঁশের সাঁকো পার হতে গিয়ে পা পিছলে নদীতে পড়ে যায়।

এলাকাবাসীর অভিযোগ, ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান ব্রিজ নির্মাণে অবহেলা ও স্থানীয় এলজিইডি কর্তৃপক্ষের গাফিলতির কারণে ব্রিজ নির্মাণ সম্পন্ন হয়নি।
ফলে দীর্ঘ আড়াই বছরেও নির্মাণকাজ শেষ না হওয়ায় এলাকাবাসী সীমাহীন দুর্ভোগ পোহাচ্ছে।

ব্যাপারে মনোহরগঞ্জ উপজেলা প্রকৌশলী জাহিদুল ইসলামের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি আমাদের লাকসামকে জানান স্থানীয় সংসদ সদস্যের সঙ্গে কথা বলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।