আমাদের নিউজ পোর্টাল ভিজিট করুন ...

ব্যক্তিগত দখল থেকে খাস জমি উদ্ধারে ইউপি চেয়ারম্যানের সংবাদ সম্মেলন

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট: [মঙ্গলবার, ২৯ মে ০১২] জনস্বার্থে ব্যবহারের সরকারি খাস জমি ব্যক্তি বিশেষের দখল থেকে উদ্ধার প্রসঙ্গে লাকসাম উপজেলার মুদাফরগঞ্জ ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ শাহ আলম সোমবার দুপুরে এক সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করেন।
ইউপি চেয়ারম্যান উল্লেখ করেন, মুদাফরগঞ্জ ইউনিয়নের ২০৭নং মৌজার ১নং খাস খতিয়ানের ১০৫ ও ১১৭ নং দাগের প্রায় পৌনে ২ একর জমি বিভিন্ন ব্যক্তি দখল করে। ভ্যাট ও রাজস্ব খাতে সরকার এ বাজার থেকে সরকার ১০ লাখ ১৩ হাজার টাকা আয় করলেও বাজার উন্নয়ন কিংবা নাগরিক সুযোগ-সুবিধা থেকে বঞ্চিত এখানকার বাসিন্দারা। এখানকার ১টি সরকারিসহ ৩টি বাণিজ্যিক ব্যাংক, ৩টি ডায়াগনস্টিক সেন্টার, ফ্যামিলি প্লানিং সেন্টার, ১টি কলেজ, হাই স্কুল, ফাজিল মাদরাসা, জামে মসজিদ, পোষ্ট অফিসে পুরুষ-মহিলা, ক্রেতাসাধারণ ও ব্যবসায়ীদের কল্যাণে উক্ত খাস জমি উদ্ধার করে সরকারিভাবে পাবলিক টয়লেট, বহুতল বিপনীবিতানসহ বিভিন্ন স্থাপনা নির্মাণ করা হলে এলাকাবাসী উপকৃত হবে। স্থান সংকুলানের অভাবে বাজারের আবর্জনা ফেলার মতো নেই ডাস্টবিন কিংবা অন্য কোনো ব্যবস্থা। তাছাড়া বাজারের পানি নিস্কাশনে ১৪টি ড্রেনের ১৩টি নিয়মবহির্ভূতভাবে লিজ দেয়াসহ এসব বিষয়ে স্থানীয় ইউনিয়ন ভূমি অফিসের তহসিলদার মোবারক হোসেনের অসহযোগিতার  অভিযোগ তুলেন তিনি। জনসাধারণের তুলনায় বাজারটি খুবই ছোট হওয়ায় জনসাধারণের ভোগান্তি বেড়েছে। ইউপি চেয়ারম্যান জনস্বার্থে উক্ত খাস জমি ও ড্রেনগুলো উদ্ধারে স্থানীয় প্রশাসন, জেলা প্রশাসনসহ গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের প্রধানমন্ত্রীর নিকট প্রতিকার চেয়েছেন।
     সংবাদ সম্মেলনে ইউনিয়নের বড় বাউরতলা গ্রামের ছেরাজুল হক (৭৫), সালামত উল্যাহ (৭০) ও রমজান আলী (১০০) অভিযোগ করেন, স্থানীয় ২০৫নং বড় বাউরতলা মৌজার ২৬৫নং দাগের ২৯ডিং সম্পতি পূর্বে গোবাম হিসেবে এলাকাবাসী ফসলের মাঠে যাতায়াতের রাস্তা হিসেবে ব্যবহার করলেও স্থানীয় তহসিলদার একই গ্রামের আমানুল্লাহ ও তার স্ত্রী আলেয়া বেগমের নামে লিজ দিয়েছেন। এতে এলাকাবাসী মাঠে যাতায়াতে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি হয়েছে। গোবামটি উদ্ধারে তারা প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেন।
     সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন, স্থানীয় ইউপি মেম্বার হাসান আহমেদ, মোঃ ইউনুছ মিয়া, ফয়জুল আলম মির্জা, আব্দুল হক মজুমদার, আবুল কাশেম, মহিলা মেম্বার শাহিনা বেগম প্রমুখ।