আমাদের নিউজ পোর্টাল ভিজিট করুন ...

মনোহরগঞ্জে দূর্ধর্ষ ডাকাতি ঘটনা পরিদর্শনে সংসদ সদস্য ও পুলিশ সুপার

সামছুল আলম সাদ্দাম: [সোমবার, ২১ মে ০১২] মনোহরগঞ্জে ডাকাতির ঘটনায় স্থানীয় সংসদ সদস্য মোঃ তাজুল ইসলাম, কুমিল্লা পুলিশ সুপার মোখলেছুর রহমান, মনোহরগঞ্জ থানা অফিসার ইনচার্জ দুলাল মাহমুদ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।..
এসময়ে সৌদি রিয়াদস্থ আ.লীগ সহসভাপতি মোঃ জাকির হোসেন এবং উপজেলা আ.লীগ অন্যতম নেতা আবুল হাসেম কন্ট্রাক্টর ও উত্তর হাওলা ইউপি চেয়ারম্যান এমএ হান্নান হিরন উপস্থিত ছিলেন। গত ১৭ মে বৃহস্পতিবার গভীর রাতে কুমিল্লার মনোহরগঞ্জের হাতিমারা গ্রামে দূর্ধর্ষ ডাকাতির ঘটনা সংগঠিত হয়। এসময় গ্রামবাসী ধাওয়া করে আন্তঃজেলা ডাকাতদলের ২ সদস্যকে আটক করে গণধোলাই দিয়ে পুলিশে সোপর্দ্দ করেছে। ঘটনার দিন ১৪/১৫ জনের একটি ডাকাতদল ওই গ্রামের নতুন জমদ্দার  বাড়ীর আবু বক্কর  মিয়ার ঘরের দরজা ভেঙে ভেতরে ঢুকে পড়ে। এ সময়  ডাকাতরা আবু বক্করের পরিবারের সকলকে অস্ত্রে মুখে জিম্মি  করে ৫ ভরি স্বর্ণ, নগদ ৪০ হাজার টাকা, মোবাইল সেটসহ প্রায় ৪ লক্ষ টাকার মালামাল নিয়ে যাওয়ার সময় আবু বক্করের চিৎকারে  গ্রামবাসী তাদের ধাওয়া করে দুজনকে আটক করে। আটককৃতরা হলো নারায়নগঞ্জের আড়াইহাজার উপজেলার শুক্কুর মিয়া (২৫) ও নোয়াখালী চাটখিলের সালাউদ্দিন (৩০)। ডাকাতদ্বয়কে কুমিল্লা জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে। এদিকে ডাকাতদের ধাওয়া করতে গিয়ে গৃহকর্তা আবদুল মজিদ ও অহিদুর রহমান গুলিবিদ্ধ হন। এছাড়াও  ডাকাতদের হামলায় আরও ৬/৭ জন গ্রামবাসী আহত হয়। গুলিবিদ্ধ অহিদুর রহমানের অবস্থা আশংকাজনক।