আমাদের নিউজ পোর্টাল ভিজিট করুন ...

লাকসাম থানা পুলিশের বর্বরতা! রিক্সাচালককে পিটিয়ে আহত

চন্দন সাহা স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট: [শুক্রবার, ০৪ মে ০১২] লাকসামে পুলিশের পিটুনীতে এক রিক্সাচালক গুরুতর আহত হয়েছে। পুলিশ লাঠি দিয়ে অমানবিক ভাবে এলোপাথাড়ি পিটিয়ে নুরুল ইসলাম নামে ওই রিক্সাচালকের পা ভেঙ্গে দিয়েছে। রিক্সাচালক নুরুল ইসলামের বাড়ী উপজেলার কান্দিরপাড় ইউনিয়নের ইরুইয়ান গ্রামে।  ঘটনাটি ঘটেছে গত ২ মে দুপুরে দৌলতগঞ্জ বাজারের রেলগেইট এলাকায়।
প্রতক্ষ্যদর্শীরা জানায় ওইদিন দুপুরে দৌলতগঞ্জ বাজারের রেলগেইট এলাকায় যানজটে পড়ে আনসার এখলাছুর রহমান রিক্সাচালক নুরুল ইসলামকে পিছন থেকে এলোপাথাড়ি মারধর শুরু করে।..
এ সময় রিক্সাচালক নুরুল ইসলাম চিৎকার দিয়ে মাটিতে লুটিয়ে পড়লে পিছনে থাকা পুলিশের এসআই বেলাল হোসেন এগিয়ে এসে তার হাতে থাকা লাঠি দিয়ে নুরুল ইসলামের পায়ে এলোপাথাড়ি পিটিয়ে তার পা ভেঙ্গে ফেলে। রিক্সাচালকের চিৎকারে লোকজন এগিয়ে আসলে এস আই বেলাল ও আনসার এখলাছুর রহমান লোকজনের উপর উদ্যত হয়ে পড়ে। ওইসময় পুলিশের মারমুখি আক্রমন দেখে লোকজনের মাঝে আতংক ছড়িয়ে পড়ে। পরে পুলিশ নুরুল ইসলামকে গুরুতর আহত অবস্থায় রাস্তায় ফেলে রেখে চলে যায়। স্থানীয় লোকজন তাকে উদ্ধার করে লাকসাম সরকারী হাসপাতালে ভর্তি করে। রিক্সাচালক নুরুল ইসলামের ডানপায়ের হাড় ভেঙ্গে যায় ও শরীরের বিভিন্ন স্থানে মারাত্মক জখম হয় বলে হাসপাতাল সূত্রে জানা যায়।
নুরুল ইসলামের স্ত্রী নুরজাহান বেগম জানান, আমার ৪ সন্তান নিয়ে স্বামীর রোজগারে দিনাতিপাত করতাম। স্বামীর পা ভেঙ্গে যাওয়ায় এবং গুরুতর আহত হওয়ায় চিকিৎসা খরচ জোগাড় করা আমার পক্ষে সম্ভব হচ্ছে না । আমি পুলিশ প্রশাসনসহ উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নিকট এ ঘটনার সুষ্ঠ বিচার চাই।
এ ব্যাপারে এসআই বেলাল হোসেন জানান, যানজট নিরসন করতে গেলে আনসারের সাথে রিক্সাচালকের তর্কবির্তক হয় ওই সময় রিক্সাচালক আনসার এখলাছুর রহমানকে মারধর করলে আমি এগিয়ে এসে রিক্সাচালককে দুএকটি চড়থাপ্পর দিয়ে চলে যাই। এর বেশি কিছু আমি জানি না।
এ ব্যাপারে ওসি মাঈন উদ্দিন খান জানান, বিষয়টি আমি শুনেছি তবে দুএকদিনের মধ্যে ঘটনাটি আমি মিমাংসা করে ফেলবো।




বিজ্ঞাপন মুক্ত এ ব্লগের প্রতিটি খবরে রয়েছে এক ঝাঁক মেধাবী তরুণ তরুণীর অক্লান্ত পরিশ্রম ও সর্বোচ্চ প্রযুক্তির ব্যবহার। তাই আমাদের খবর আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করে আমাদেরকে উৎসাহিত করুন।
undefined