আমাদের নিউজ পোর্টাল ভিজিট করুন ...

পূর্বাঞ্চল রেলওয়ের লাকসাম কুমিল্লা অংশে সমস্যা আর সমস্যা

সামিউর রহমানঃ [মঙ্গলবার, ০১ মে ০১২] পূর্বঞ্চল রেলওয়ের লাকসাম কুমিল্লা অংশে এখন বেহাল অবস্থা ট্রেনের বগি, লোকবল সঙ্কট আর লাইন সংস্কার না হওয়ায় এক দিকে ট্রেনের সময়সূচিতে ছন্দপতন অন্য দিকে যাত্রী ভোগান্তি নিত্যনৈমিত্তিক ব্যাপার হয়ে দাঁড়িয়েছে
পূর্বাঞ্চল রেলওয়ের কুমিল্লা স্টেশন লাকসাম জংশন স্টেশন নানা সমস্যায় হাবুডুবু খাচ্ছে রেলপথে চলাচলকারী আন্তঃনগর ট্রেনগুলো রেললাইনের দুর্দশার কারণে এখন আর সময়মতো যাত্রাবিরতি, স্টেশন গন্তব্যে পৌঁছতে পারছে না সময় চলে যায় কিন্তু স্টেশনে রেলগাড়ি সময়মেপে চলে না তবু মানুষ ভোগান্তির মধ্যেও রেলপথের ভ্রমণকে আরামদায়ক নিরাপদ ভেবে ট্রেনে চড়ছে বিশেষ করে আন্তঃনগর ট্রেনের টিকিট পেতে হিমশিম খাচ্ছেন যাত্রীরা।..
নির্ধারিত ভাড়ার বেশি টাকা দিলে তবেই টিকিট মিলে কাউন্টারে আবার স্টেশনে দায়িত্বরতদের পোষ্য কালোবাজারি রয়েছে তাদের কাছেও পাওয়া যায় টিকিট অগ্রিম টিকিটের জন্য কাউন্টারে ধরনা দিয়েও তা পাওয়া যায় না আখাউড়া-লাকসাম, লাকসাম-নোয়াখালী, লাকসাম-চাঁদপুর রেলপথে গত কয়েক বছরে ট্রেনের সংখ্যাও কমেছে লোকাল ট্রেন এখন আর চোখে পড়ে না মূলত ইঞ্জিন, বগি লোকবল সঙ্কটের কারণে দিন দিন কমছে ট্রেনের সংখ্যা
দেড় বছরের পুরনো কুমিল্লা রেল স্টেশনের অবকাঠামোগত উন্নয়ন আয় বাড়লেও যাত্রীসেবার মান বাড়েনি বিশ্রামাগার, শৌচাগার, নিরাপত্তা আলোক ব্যবস্থাসহ রেলস্টেশনের সব কিছুতে রুগ্ণ দশা যাত্রীদের অভিযোগের অন্ত নেই তাই বেশির ভাগ সময়ই চাপা ােভ নিয়ে গন্তব্যে পৌঁছেন যাত্রীরা আবার যারা অন্যস্থান থেকে রেলে চড়ে লাকসাম কুমিল্লায় আসেন তারাও কমবেশি বিড়ম্বনার শিকার হন স্টেশনে
কুমিল্লা রেল স্টেশন হয়ে প্রতিদিন ঢাকা-চট্টগ্রাম, নোয়াখালী-ঢাকা, চট্টগ্রাম-সিলেট, চাঁদপুর-ভৈরব রুটে চলাচলকারী ১৬টি আন্তঃনগর এবং ১৬টি মেইল এক্সপ্রেস ট্রেনের কয়েক হাজার যাত্রী যাতায়াত করে গত বছরে শেষের ছয় মাসে কুমিল্লা রেলওয়ে দেড় কোটিরও বেশি টাকা আয় করে কিন্তু সে তুলনায় যাত্রীসেবার মান বাড়েনি অনুসন্ধান কে বেশির ভাগ সময়ই তালা ঝুলে ট্রেনের সময়সূচি বা গুরুত্বপূর্ণ কিছু জানতে অনুসন্ধান বিভাগের ফোন নম্বরে কল করলে তা রিসিভ করার কেউ থাকে না বিশুদ্ধ পানির সুবিধা নেই এখানে নেই মানসম্মত শৌচাগার যাত্রী বিশ্রামাগারে বিরাজ করছে দুর্গন্ধময় পরিবেশ বিশ্রামাগারে আসন অপ্রতুলতার কারণে ট্রেনে ওঠার জন্য দীর্ঘ সময় প্লাটফরমেই দাঁড়িয়ে থাকতে হয় যাত্রীদের জিআরপি পুলিশ নিরাপত্তাকর্মীদের চোখের সামনেই স্টেশনের পরিত্যক্ত প্লাটফরম ট্রেনের পরিত্যক্ত বগিগুলোতে মাদকসেবী এবং পতিতাদের আড্ডা ওপেন সিক্রেটে পরিণত হয়েছে কুমিল্লা রেলওয়ে স্টেশন পরিচালনার জন্য বিভিন্ন পদে লোকবলের অভাব
দিকে প্রকল্প প্রস্তাবনার ৪০ বছরেও লাকসাম থেকে ঢাকা রেল কর্ডলাইন প্রকল্পটি আলোর মুখ দেখেনি ১৯৬৯ সালে লাকসাম ঢাকা-১১০ কিলোমিটারের কর্ডলাইন নির্মাণের পরিকল্পনা জরিপ সম্পন্ন হলেও পর্যন্ত তা বাস্তবায়ন হয়নি স্বাধীনতার চার-পাঁচ বছর পর পরিকল্পনা বাস্তবায়নের জন্য ট্রাফিক জরিপের চূড়ান্ত রিপোর্ট জমা দেয়া হয় যোগাযোগ মন্ত্রণালয়ে জরিপে লাকসাম-ঢাকা কর্ডলাইনের প্রস্তাবনায় কুমিল্লার বিজরা, বরুড়া, আরিফপুর, চান্দিনা, মুরাদনগর, হোমনা, বাঞ্ছারামপুর নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জ এবং ডেমরা এলাকা দিয়ে রেলপথ নির্মাণের প্রস্তাব করা হয় রেলপথে লাকসাম থেকে বর্তমানে কুমিল্লা স্টেশন হয়ে কসবা, আখাউড়া, বি-বাড়িয়া, আশুগঞ্জ, ভৈরব, নরসিংদী টঙ্গী হয়ে বৃত্তাকার পথ ঘুরে ঢাকায় পৌঁছতে কমপে ঘণ্টা সময় ব্যয় হয় লাকসাম-ঢাকা রেল কর্ডলাইন চালু হলে বর্তমান গতিতে ট্রেন চললেও সময় কমে তা ঘণ্টায় দাঁড়াবে তা ছাড়া চট্টগ্রাম থেকে ঢাকার ৩২৪ কিলোমিটারের দূরত্ব কমে হবে ২১৪ কিলোমিটার কেবল তা- নয় এক বিশাল জনগোষ্ঠী রেলপথের সঙ্গী হয়ে উঠবে দিকে ঢাকা-চট্টগ্রাম রেলপথের কুমিল্লা লাকসাম থেকে চিনকি আস্তানা পর্যন্ত ডাবল রেললাইন নির্মাণের প্রাথমিক কাজ শুরু হয়েছে আগামী তিন বছরের মধ্যে প্রকল্পের কাজ সম্পন্ন হওয়ার কথা তখন ঢাকা-চট্টগ্রাম রেলপথে ভ্রমণ সময় অনেক কমে আসবে প্রায় দেড় বছরে কুমিল্লা রেল স্টেশনের অবকাঠামোগত উন্নয়ন হয়েছে বেশ কিন্তু স্টেশন পরিচালনায় দায়িত্বশীলদের মানসিক অবস্থার পরিবর্তন হয়নি যাত্রীদের নানা সমস্যা শুনতে বা সমাধান করতে তারা যেন বাধ্য নন, এমনটিই দেখা যায় কর্মকর্তাদের আচরণে

সম্পাদনা : মাহমুদ হাসান , আউটপুট এডিটর
সাইদুল ইসলাম রনি, নিউজরুম এডিটর, রায়হান কবির, কনসালট্যান্ট এডিটর




বিজ্ঞাপন মুক্ত এ ব্লগের প্রতিটি খবরে রয়েছে এক ঝাঁক মেধাবী তরুণ তরুণীর অক্লান্ত পরিশ্রম ও সর্বোচ্চ প্রযুক্তির ব্যবহার। তাই আমাদের খবর আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করে আমাদেরকে উৎসাহিত করুন।
undefined