আমাদের নিউজ পোর্টাল ভিজিট করুন ...

দশম শ্রেণীর শিক্ষার্থীর পায়ের রগ কেটে দেয় অজ্ঞাত সন্ত্রাসীরা


আবু পলাশঃ [বৃহস্পতিবার, ১২ এপ্রিল ২০১২] লাকসামে দশম শ্রেণীর ছাত্রের পায়ের রগ কর্তন করার খবর পাওয়া যায়।  উপজেলার ২নং মুদাফফরগঞ্জ ইউপির পরানপুর গ্রামের গোলাম মোস্তফা চৌধুরীর ছেলে চিতোষি জালাল মেমোরিয়াল হাই স্কুলের দশম শ্রেণীর বিজ্ঞান বিভাগের ছাত্র গোলাম রাশেদ চৌধুরী (১৬) কে দুই পায়ের রগ কেটে দেয় অজ্ঞাত সন্ত্রাসীরা। মাগরিবের নামায শেষে বাড়ির ফেরার পথে কয়েকজন অজ্ঞাত মুখুশধারী সন্ত্রাসী রাশেদকে মুখ চেপে ধরে অজ্ঞাত স্থানে নিয়ে যায়।  সন্ত্রাসীরা রাশেদের হাতে-পায়ে বেধে এলোপাতাড়ি মারধর শুরু করে।..
তার মৃত্যু নিশ্চিত করার জন্য দুই পায়ের রগ কেটে দেয় এবং তাকে জালাল মেমোরিয়াল হাই স্কুলের পরিত্যাক্ত ছাত্রাবাসে চোখ ও মুখ বাঁধা অবস্থায় ঝুলিয়ে রাখে।  মৃতু নিশ্চিত জেনে সন্ত্রাসীরা ঝুলন্ত অবস্থায় রেখে যায়।  এদিকে রাশেদ মসজিদ থেকে না ফেরার কারনে পরিবারের লোকজন বিভিন্ন আত্মীয় স্বজনের বাড়িতে খোজাখুজি করতে থাকে।  স্কুলের প্রহরী ভোরভেলায় পরিত্যাক্ত ছাত্রাবাসে রাশেদকে ঝুলুন্ত অবস্থায় দেখতে পেয়ে চিৎকার শুরু করলে আবাসিক ছাত্রাবাসের ছাত্ররা এসে তাকে উদ্বার করে পরিবারের লোকজনকে খবর দিলে রাশেদকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় চিকিৎসার জন্য কুমিল্লা মেডিকেলে কলেজে ভর্তি করে।
এ বিষয়ে স্কুলের প্রধান ফখরুল ইসলাম জানান রাশেদের সাথে শ্রেণীকক্ষের ছাত্র অথবা পার্শ্ববর্তি লোকজনের সাথে কোন রকম ঝগড়া বা ঝামেলা ছিল তা আমাদের জানা নেই।  তবে আমরা বিষয়টি নিয়ে উপজেলা প্রশাসনকে জানিয়েছি তদন্ত সাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।  রাশেদকে হত্যার চেষ্টা ও পায়ের রগ কর্তন বিষয়ে স্কুল পরিচালনা কমিটির সভাপতি এ.বি.এম আব্দুল মুবিন জানান দীর্ঘ দিন থেকে স্কুলের বিভিন্ন বিষয়ে নিয়ে দ্বন্দ্ব সংঘাত চলে আসছিল কিন্তু রাশেদকে হত্যার চেষ্টার বা পায়ের রগ কর্তন এই দ্বন্দ্বের সাথে জড়িত কিনা তা আমাদের জানা নেই।  তবে তদন্ত সাপেক্ষে প্রকৃত দোষীদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্হা নেয়া হবে।  রাশেদের বড় ভাই গোলাম সরওয়ার জানান আমার ভাইকে হত্যার উদ্দেশ্যে অপহরন করা হয়েছিল এবং পায়ের রগ কর্তন করে স্কুল ছাত্রাবাসে বেঁধে রেখে ব্যাপক নির্যাতন করা হয়েছে।  আমরা তার সু-বিচার দাবি করছি।  রাশেদের পায়ের রগ কর্তন ও হত্যার উদ্যেশ্যে নির্যাতনে বিষয় মামলার প্রক্রিয়া চলছে।




বিজ্ঞাপন মুক্ত এ ব্লগের প্রতিটি খবরে রয়েছে এক ঝাঁক মেধাবী তরুণের অক্লান্ত পরিশ্রম ও সর্বোচ্চ প্রযুক্তির ব্যবহার। তাই আমাদের খবর আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করে আমাদেরকে উৎসাহিত করুন।