আমাদের নিউজ পোর্টাল ভিজিট করুন ...

পহেলা বৈশাখ ১৪১৯ বাংলা সনের একটি আশ্চর্য ঘটনা!

মোঃ আব্দুল কাদের রাজ 
মাহমুদ হাসান: [শনিবার, ১৪ এপ্রিল ০১২] ঐতিহ্যবাহী উসবের মধ্য দিয়ে সারাদেশে দিনটি উদযাপিত হচ্ছে। আজ সরকারি ছুটির দিন। বহু বছর ধরে চলে আসা ঐতিহ্য অনুযায়ী ব্যবসায়ী এবং দোকানদাররা হালখাতা (নতুন হিসাব খাতা) করবে এবং তাদের খদ্দের , ভোক্তাদেরকে মিষ্টিমুখ করাবে। দিনটি উদযাপনের জন্য বিভিন্ন সাংস্কৃতিক-সামাজিক সংগঠন নানা কর্মসূচি হাতে নিয়েছে। দিনের প্রথম রমনার বটমূলে শুরু হবে। দেশের একটি শীর্ষস্থানীয় সাংস্কৃতিক সংগঠন ছায়ানট এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করবে।

কিন্তু এর কিছু ব্যতিক্রম দেখা যায় কুমিল্লা জেলার অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ উপজেলা লাকসামের পূর্ব হাউজিং এর এক যুবকের কাছে। যুবকটির নাম মো: আব্দুল কাদের রাজ (২৪)।..
যুবকটি ২০০৮ সালে কুমিল্লা পলিটেকনিক ইন্সটিটিউট থেকে পাওয়ার বিভাগে ডিপ্লোমা কোর্স সম্পন্ন করে এবং সে এখন ঢাকায় নিজ উদ্দেগে কার হোম সার্ভিস নামক একটি প্রতিষ্ঠান পরিচালনা করেন। বাংলা নববর্ষ ১৪১৯ উপলক্ষে সে ভিন্ন ধরনের একটি কাজ করে। সে ঢাকা থেকে বাই-সাইকেল চালিয়ে লাকসাম আসার পরিকল্পনা করে। তারমতে তারজন্য এটাই বাংলা নববর্ষ ১৪১৯ এর সবচেয়ে মধুর উদযাপন। তিনি আমাদের লাকসামকে বলেন- আমি এবারের বাংলা নববর্ষ ১৪১৯ টা অন্য ভাবে উদযাপন করার লক্ষ্যে, ঢাকা থেকে আমার লাকসামের নিজ বাসায় আমার ব্যবহৃত বাই-সাইকেলে আসার পরিকল্পনা নিই। গত ১১-০৪-২০১২ ইং ভোর ৫ টায় ঘুম থেকে উঠে খাবার খেয়ে ৬ টা ১৩ মিনিটে আমার বাই-সাইকেল নিয়ে গুলশান-১,ঢাকা থেকে লাকসামের উদ্দেশ্য রওনা হই। প্রথম ২ ঘন্টা ভালভাবে চালিয়ে ছিলাম(ঘন্টা প্রতি ৩৫-৪০ কি.মি.)। মাএ ২ ঘন্টায় মেঘনা টোল প্লাজাতে এসে পৌছি এবং ১০ টাকা টোল চার্জ দিয়ে টোল অতিক্রম করি। দাউদকান্দি এসে নাস্তা করে আাবার রওনা হলাম। এর বিছু সময় পরেই শুরু হল চরম কষ্টের পথ। কেননা দাউদকান্দি থেকে মাধাইয়া পর্যন্ত পুরু রাস্তার উপরে ছোট মাজারি সাইজের পাথর পিচ দিয়ে বিছানো। যেখানে ঘন্টা প্রতি ১০ কি.মি. এর বেশি গতি উঠানো সম্ভব হচ্ছিল না। সেই সাথে পায়ের মাংশ পেশিতে প্রচন্ড টান/ব্যথা অনুভব করছিলাম। অবশেষে দুপুর ১২ টায় চান্দিনা এসে দুপুরের খাবার খেয়ে ২০ মিনিট পরে পুনরায় আবার যাএা শুরু করে ১ টা ২৫ মিনিটে কুমিল্লা পলিটেকনিক ইন্সটিটিউট এ এসে পৌছি। সেখানে আমার শ্রদ্ধেয় শিক্ষক(ড. মুরাদ হোসেন মোল্লা, প্রিন্সিপাল অব কু.প.ই.) সহ অন্যান্য শিক্ষক এবং আমার ছোট ভাই মো: জাহিদুল হাসান এর সাথে দেখা করি। তারপর বিকাল ৩ টায় পুনরায় লাকসামের উদ্দেশ্য যাএা শুরু করে বিকাল ৪ টায় হরিশ্চর এসে ১০ মিনিটের যাএা বিরতিতে নাস্তা করে বিকাল ৪ টা ১৭ মিনিটে লাকসাম হাউজিং এ আমার নিজ বাসায় এসে পৌছি এবং আমার যাএার সমাপ্তি ঘটাই।
তিনি আমাদের লাকসামকে আরও বলেন- পরিবার ও আত্নীয়-স্বজন এবং ছোটবেলার বন্ধুদের সাথে যেকোন উৎসবের আনন্দ উপভোগ করার অনুভূতীটাই অন্যরকম। যা আমি আমার জীবনে স্বরনীয় করে রাখতে চাই। আমি সকলের দোয়া প্রার্থী। যাতে করে ভবিষ্যৎ এ এর চেয়েও আর বড় কিছু করতে পারি।

সম্পাদনা : স্বরন হক, নিউজরুম এডিটর
              শামীম ফরহাদ, নিউজরুম এডিটর





বিজ্ঞাপন মুক্ত এ ব্লগের প্রতিটি খবরে রয়েছে এক ঝাঁক মেধাবী তরুণের অক্লান্ত পরিশ্রম ও সর্বোচ্চ প্রযুক্তির ব্যবহার। তাই আমাদের খবর  আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করে আমাদেরকে উৎসাহিত করুন।