আমাদের নিউজ পোর্টাল ভিজিট করুন ...

মনোহরগঞ্জে চাকুরী বেতন লাকসামে !

নঈম আজাদ: [বুধবার, ১১ এপ্রিল ০১২] মনোহরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসারসহ বিভিন্ন দপ্তরের ৫শতাধিক কর্মকর্তা-কর্মচারীকে গত বছর ধরে বেতন ভাতা লাকসাম থেকে তুলতে হচ্ছে এতে কর্মঘন্টা নষ্ট হচ্ছে অতিরিক্ত অর্থ ব্যয় হচ্ছে ঝুঁকি নিয়ে যাতায়াত করতে হচ্ছে কর্মকর্তা-কর্মচারীগণকে দুর্ভোগ নিরসনে প্রশাসনের সব আবেদন-নিবেদন এবং পদক্ষেপই ব্যর্থ হয়েছে তাই উপজেলা চেয়ারম্যান প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।..
২০০৪ সালের ২৪ আগষ্ট প্রশাসন পুনর্বিন্যাস সংক্রান্ত জাতীয় কমিটি নিকার মনোহরগঞ্জ উপজেলার নীতিগত অনুমোদন প্রদান করে কুমিল্লার জলাঞ্চল নামে খ্যাত লাকসামের ১১টি ইউনিয়ন নিয়ে গঠিত হয় মনোহরগঞ্জ উপজেলা কুমিল্লার ১৫তম এবং দেশের ৪৭২তম উপজেলা মনোহরগঞ্জ একই বছরের ৩০ সেপ্টেম্বর এই নবগঠিত উপজেলার গেজেট প্রকাশিত হয় ২০০৫ সালের ফেব্রয়ারি মনোহরগঞ্জ উপজেলার প্রশাসনিক কার্যক্রম শুরু হয় অনেক আবেদন-নিবেদন আর তদবিরের পর মনোহরগঞ্জে সোনালী ব্যাংকের ট্রেজারি শাখার উদ্বোধন করা হয় ২০০৯ সালের জুলাই কিন্তু আজো এই শাখায় ট্রেজারি কার্যক্রম চালু হয়নি উপজেলা নির্বাহী অফিসার, ওসি, কৃষি, শিক্ষা, স্বাস্থ্য, প্রকৌশলী, পরিবার-পরিকল্পনা, সমাজসেবা, ভূমি, পল্লী উন্নয়নসহ সব দপ্তরের কর্মকর্তা এবং তাদের অধিনস্ত সব কর্মচারীকে বেতন ভাতা লাকসাম উপজেলা হিসাব রক্ষণ অফিসের মাধ্যমে সোনালী ব্যাংক লাকসাম শাখা থেকে উত্তোলন করতে হচ্ছে গত বছর ধরেই চলছে এই প্রক্রিয়া মনোহরগঞ্জের নবাগত উপজেলা নির্বাহী অফিসার জাহিদুর রহমান জানান, উপজেলা হিসাব রক্ষণ অফিস না থাকায় এখানকার কর্মকর্তা-কর্মচারীগণকে দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে তিনি হিসাব রক্ষণ অফিস স্থাপনে উদ্যোগে গ্রহণ করবেন বলে জানান এদিকে মনোহরগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান মো: ইলিয়াছ পাটওয়ারী বলেন, বাস্তবতা হলো উপজেলা চেয়ারম্যান হিসেবে আমি কোনো কাজ করতে পারছি না তিনি জানান, মনোহরগঞ্জ উপজেলা হিসাব রক্ষণ অফিস স্থাপনের জন্য কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করে গত বছরে বহুবার আবেদন-নিবেদন, জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে এজন্য রেজুলেশন নেয়া হয়েছে, তদবির করা হয়েছে কিন্তু কার্যত কোনো কাজ হয়নি একাউনটেন্ট জেনারেল দপ্তর থেকে এজন্য কোনো পদক্ষেপ নেয়া হচ্ছে না তিনি এজন্য প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন মনোহরগঞ্জের কর্মচারীগণকে লাকসাম থেকে বেতনভাতা নিতে হচ্ছে বছর ধরে বিষয়ে গতকাল রাতে কুমিল্লার জেলা প্রশাসক মো: রেজাউল আহসান এর সাথে কথা বললে তিনি অনেকটা অবাক হয়ে জানান, আমি জানি না তো তিনি বিষয়টি জেনে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেবেন বলে জানান সোনালী ব্যাংক কুমিল্লার সাবেক জিএম (মহাব্যবস্থাপক) ননী গোপাল নাথ এর সাথে কথা বললে তিনি জানান, ব্যাংক কিছু করতে পারবে না হিসাব রক্ষণ অফিস চালু না হলে

সম্পাদনা : সোহেল রানা , আউটপুট এডিটর





বিজ্ঞাপন মুক্ত এ ব্লগের প্রতিটি খবরে রয়েছে এক ঝাঁক মেধাবী তরুণ তরুণীর অক্লান্ত পরিশ্রম ও সর্বোচ্চ প্রযুক্তির ব্যবহার। তাই আমাদের খবর আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করে আমাদেরকে উৎসাহিত করুন।
undefined