আমাদের নিউজ পোর্টাল ভিজিট করুন ...

লাকসাম-মনোহরগঞ্জে ডাকাতিয়া নদী দুই তীর প্রভাবশালীদের দখলে

বিশেষ প্রতিবেদন: [বুধবার, ০৪ এপ্রিল ০১২] লাকসাম-মনোহরগঞ্জে ডাকাতিয়া নদীর দুতীর অবৈধভাবে প্রভাবশালীদের মধ্যে দখলের প্রতিযোগিতা চলছে অবৈধভাবে নদীর দুতীর দখল বিভিন্ন বিল্ডিং, মার্কেট স্থাপনা নির্মাণ করায় ঐতিহ্যবাহী নদীর প্রশস্ততা কমে গেছে ১৪০ ফুটের প্রশস্ত নদীটি বর্তমানে ৩০ ফুট এতে নৌ চলাচল ব্যাহত হওয়াসহ প্রতি বছর নদীর দুতীর এলাকার উপজেলার প্রায় ২৫ লাখ মানুষ জলাবদ্ধতার শিকার হচ্ছে..
জানা গেছে, ডাকাতিয়া নদী ভারতের রগুনন্দন পাহাড় থেকে সোনাইছড়ি দিয়ে প্রবেশ করে লাকসাম লাকসামের নবগঠিত মনোহরগঞ্জ উপজেলার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হয়ে লাকসাম-মনোহরগঞ্জ, শাহরাস্তি, হাজিগঞ্জ হয়ে চাঁদপুরের মেঘনা নদীতে মিশেছে এর দৈর্ঘ্য প্রায় ৩৫০ কিলোমিটার এক সময়ের নৌ-যোগাযোগ ব্যবস্থার প্রধান উত্তাল ডাকাতিয়া নদী এখন অবৈধভাবে ভরাট হয়ে নদীর তলদেশে মাইলের পর মাইল বালুচর জেগে নাব্য হ্রাস পেয়ে নদী বিপন্ন হয়ে পড়েছে ডাকাতিয়া নদীর কারণে লাকসামের দৌলতগঞ্জ বাজারে ব্যবসা-বাণিজ্যের ব্যাপক প্রসার ঘটে যাতায়াতের প্রধাম মাধ্যম ছিল নৌ চলাচল এক সময় বড় বড় জাহাজ নদীপথ দিয়ে চলাচল করত নৌ যোগাযোগের সুবিধার কারণে নদীপথের শাহরাস্তি, হাজিগঞ্জ, লক্ষ্মীপুর, চাঁদপুরসহ আশপাশের জেলা, উপজেলার লোকজন লাকসামে আসত বর্তমানে লাকসাম উপজেলা সদরের দৌলতগঞ্জ বাজারের রাজঘাট, গোলবাজার, সামনের পুল, পশ্চিমগাঁও, সিংজোড়, হামিরাবাগ, কালিয়াপুর এবং লাকসামের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ১১টি ইউনিয়ন নিয়ে নবগঠিত মনোহরগঞ্জ উপজেলা সদরের মনোহরগঞ্জ বাজার, আমতলী, চিতোশীসহ বিভিন্নস্থানে ডাকাতিয়ার দুতীরে দখলদাররা অবৈধভাবে বিভিন্ন বিল্ডিং, মার্কেট স্থাপনা নির্মাণ করায় ঐতিহ্যবাহী নদীর অস্তিত্ব এখন হুমকির মুখে শুল্ক মৌসুমে নদীর তলদেশ শুকিয়ে নদী পানিশূন্য এবং বর্ষাকালে নদীর পানির উচ্চতা বেড়ে দুতীর এলাকার উপজেলার প্রায় ২৫ লাখ মানুষ জলাবদ্ধতার শিকার হয় প্রতি বছর বর্ষাকালে নদী তীরবর্তী এলাকার মানুষ দুর্বিষহ জীবনযাপন করে
বর্তমানে নদীপথে নৌ যোগাযোগ ব্যবস্থা বন্ধ রয়েছে পাশাপাশি নদীর নাব্য হ্রাস পেয়েছে সরকারি সূত্র মতে, ডাকাতিয়া নদীর তীর থেকে ফুট দূরে ভবন নির্মাণের নিয়ম রয়েছে কিন্তু ডাকাতিয়ার দুতীরের দখলদাররা নদীর ভেতরে অবৈধভাবে লাকসামের রাজঘাট, গোলবাজার, সামনের পুল, পশ্চিমগাঁও, সিংজোড়, হামিরাবাগ, কালিয়াপুর এবং মনোহরগঞ্জ উপজেলা সদরের মনোহরগঞ্জ বাজার, আমতলী, চিতোশীসহ বিভিন্ন স্থানে বিভিন্ন স্থাপনা এবং কোনো কোনো স্থানে অবৈধ ভবনের অর্ধেক নদীর ওপর নির্মাণ করেছে



বিজ্ঞাপন মুক্ত এ ব্লগের প্রতিটি খবরে রয়েছে এক ঝাঁক মেধাবী তরুণের অক্লান্ত পরিশ্রম ও সর্বোচ্চ প্রযুক্তির ব্যবহার। তাই আমাদের খবর আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করে আমাদেরকে উৎসাহিত করুন