আমাদের নিউজ পোর্টাল ভিজিট করুন ...

কনস্টেবলের রহস্যজনক মৃত্যু নয় তা ছিলো আত্মহত্যা


কনস্টেবলের লাশ এবং পাশে নিহতের বাবার আহাজারি
নিজস্ব প্রতিবেদক সদর দক্ষিণ থেকেঃ [রবিবার, ১৫ এপ্রিল ২০১২] গত বুধবার পুলিশ কনস্টেবলের রহস্যজনক মৃত্যু নিয়ে একটা খবর দেয়া হয়েছিলো আমাদের ব্লগে। সেই খবরের পরের অংশ........
কুমিল্লায় নিজের অস্ত্রে গুলি করে আত্মহত্যা করেছে পুলিশের এক সদস্য। তার নাম নায়েক তানভির আহমেদ (৩৫) । স্ত্রীর সাথে পারিবারিক কলহের জের ধরে সে আত্মহত্যা করে।...
তানভির আহমেদ কুমিল্লার পুলিশ লাইন থেকে জাঙ্গালিয়া বিদ্যুত কেন্দ্রে প্রহরির দায়িত্ব পালন করছিলেন। বুধবার সকাল ৯টায় জাঙ্গালিয়া পুলিশ ব্যারাকের একটি কামরায় সে আত্মহত্যা করে। তানভিরের আরাফ (৪) ও আলিফ (১) নামে দুই ছেলে রয়েছে। চাঁদপুর জেলার কচুয়া উপজেলার সরাইলকান্দি গ্রামে তার বাড়ি। কুমিল্লা সদর দক্ষিণ থানার অফিসার ইনচার্জ জসীম উদ্দিন জানান, স্ত্রীর সাথে পারিবারিক সমস্যার কারণে আত্মহত্যা করে থাকতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে। তিনি জানান, তানভির আহমেদ তার নামে বরাদ্দকৃত সরকারি অস্ত্র চাইরিজ এসএমজি দিয়ে মুখের চোয়ালে গুলি করলে সে গুলি মাথার উপর দিয়ে বেরিয়ে যায়। গুলিবিদ্ধ হওয়ার পর তার সহকর্মীরা দ্রুত তাকে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজে হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসকরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন। নিহতের পিতা রুস্তম আলী ও মামা অবসরপ্রাপ্ত সেনা সদস্য মিজানুর রহমান অভিযোগ করে বলেন, স্ত্রী আছিয়া বেগমের পরকীয়া প্রেমের ফলে পারিবারিক কলহের জের ধরে আর ডেসটিনির নিয়োগকৃত অর্থ ফেরত পাওয়া না পাওয়া নিয়ে হতাশা থেকে আত্মহত্যা করতে পারে। তারা জানান, কলহের খবর পেয়ে তার পিতা ও মামা বাড়ী থেকে ছুটে এসেছেন জাঙালিয়ায়। এখানে এসে শুনতে পাচ্ছেন তার ছেলে আত্মহত্যা করেছে। ছেলের আত্মহত্যার খবর শুনে তার পিতা হাসপাতালের সামনে কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন। খবর পেয়ে কোতয়ালী মডেল থানার এসআই জসীম উদ্দিন লাশের সুরতাল শেষে মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য কুমিল্লা মেডিকেল কলেজের মর্গে প্রেরণ করেন। পুলিশের উবর্ধতন কর্মকর্তরা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। এ দিকে খবর পেয়ে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে আসেন নিহতের স্ত্রী আছিয়া বেগম, দুই শিশু পুত্র আরাফ (৪) ও আলিফ (১)। হাসপাতালে আছিয়া বেগম জানান, সংসারে কোন খরচ না দেয়ায় তিনি বিষয়টি নিয়ে পুলিশের উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে অভিযোগ করেন। এ বিষয়টি তানভির মেনে নিতে পারে নি। কুমিল্লার পুলিশ সুপার মোখলেসুর রহমান জানান, পারিবারিক কলহের কারণে তানভির আত্মহত্যা করেছে বলে মনে হচ্ছে। নিহতের স্ত্রী মঙ্গলবার কুমিল্লায় এসেছে জানি। কুমিল্লার পুলিশ লাইনে জানাজা শেষে নিহত তানভির আহমেদের মরদেহে গ্রামের বাড়িতে নিয়ে যাওয়া হয়েছে।

সম্পাদনা : মাহমুদ হাসান , আউটপুট এডিটর



বিজ্ঞাপন মুক্ত এ ব্লগের প্রতিটি খবরে রয়েছে এক ঝাঁক মেধাবী তরুণ তরুণীর অক্লান্ত পরিশ্রম ও সর্বোচ্চ প্রযুক্তির ব্যবহার। তাই আমাদের খবর আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করে আমাদেরকে উৎসাহিত করুন।