আমাদের নিউজ পোর্টাল ভিজিট করুন ...

কৃষি ব্যাংকের লাকসাম আঞ্চলিক কার্যালয় কুমিলা্লয় স্থানানন্তরের প্রতিবাদে লাকসাম জেলা বাস্তবায়ন পরিষদের স্মারকলিপি

সাইফ খান: [বুধবার, ০৭ মার্চ ০১] লাকসাম, মনোহরগঞ্জ, কুমিলা্ল সদর দক্ষিণ, নাঙ্গলকোট, চৌদ্দগ্রাম বরুড়াসহ ১৮টি শাখার মধ্যবর্তী লাকসাম পৌর এলাকার হাউজিং এষ্টেটে স্থাপিত বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংকের আঞ্চলিক কার্যালয়টি কুমিলা্লয় স্থানান্তর প্রক্রিয়ার প্রতিবাদে লাকসাম জেলা বাস্তবায়ন পরিষদের উদ্যোগে গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে এক মতবিনিময় বর্তমান কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত হয়েছে।..

মতবিনিময়ে পরিষদ নেতৃবৃন্দ কৃষি ব্যাংক আঞ্চলিক কার্যালয় কুমিলা্লয় স্থানান্তরের বিষয়ে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করে বলেন, ‘ভৌগলিক সীমারেখা এবং লাকসামের গুরুত্ব বিবেচনা করে ২০০২ সালে কার্যালয়টি কার্যক্রম শুরু করে। এখান থেকে ৬টি উপজেলার ১৯টি শাখার তদারকি খুবই সহজ নেতৃবৃন্দ আরো বলেন, ‘যে মুহূর্তে লাকসামকে জেলা বাস্তবায়নের দাবীর জোরালো হচ্ছিলো ঠিক সে মুহূর্তেই একটি স্বার্থান্বেষী মহলের হীন চক্রান্তে আঞ্চলিক কার্যালয়টি কুমিলা্লয় স্থানান্তরের প্রক্রিয়া খুবই নেক্কারজনক। ষড়যন্ত্র বৃহত্তর লাকসামবাসী কিছুতেই মেনে নেবে না। ষড়যন্ত্র প্রতিহত করতে প্রয়োজনে কঠোর কর্মসূচি ঘোষণা করা হবে বিষয়ে নেতৃবৃন্দ ব্যাংকের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি কামনা করেন। পরে আঞ্চলিক ব্যবস্থাপক বরাবরে একটি স্মারকলিপি প্রদান করা হয়।

সময় ব্যাংকের সহকারী জেনারেল ম্যানেজার মোঃ শাহজাহান ভৌগলিক অবস্থানের প্রেক্ষিতে লাকসামেই আঞ্চলিক কার্যালয়টি রাখার গুরত্বি অনুধাবন করেন এবং কার্যালয়টি লাকসামে বহাল রাখার বিষয়ে আশ্বস্ত করেন। মতবিনিময়ে লাকসাম জেলা বাস্তবায়ন পরিষদের প্রধান সমন্বয়ক বিশিষ্ট সাংবাদিক মোঃ আবদুল কুদ্দুস, সদস্য আবদুল রহমান বাদল, অধ্যাপক হুমায়ন কবির, ঢাকাস্থ লাকসাম সোসাইটির আহবায়ক মোশারফ হোসেন লাভলু, সাইফ খান, সাংবাদিক জাফর আহমেদ, সাংবাদিক খলিলুর রহমান, সাংবাদিক শহিদুল ইসলাম শাহিন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন