আমাদের নিউজ পোর্টাল ভিজিট করুন ...

ঢাকা মেডিকেলে আহত অবস্থায় লাকসামের চিকিৎসক


নিজস্ব প্রতিনিধিঃ [বৃহস্পতিবার, ২২ মার্চ ০১২] চিকিৎসকদের সংগঠন স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদের দুই পক্ষের সংঘর্ষে ৩ জন আহত হয়েছেন।গতকাল বুধবার ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে এ ঘটনা ঘটে। আহত চিকিৎসকদের মধ্যে আবদুল্লাহ তারেক ভূঁইয়াকে ওই হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।..
জানা যায়, আবদুল্লাহ তারেক ভূঁইয়া লাকসামবাসী।তার বাড়ী লাকসাম হাউজিং এস্টেটের পশ্চিমপাশে।তার বাবা আব্দুর রহিম ভূঁইয়া হরিশ্চর উচ্চ বিদ্যালয়ের সাবেক প্রধান শিক্ষক।তারেক লাকসাম স্কুল থেকে এসএসসি পাশ করেন।প্রত্যক্ষদর্শী ও হাসপাতাল সূত্র জানায়, গতকাল বেলা দেড়টার দিকে স্বাচিপের এক পক্ষ ছুরি নিয়ে ক্যাজুয়ালিটি ব্লকের সামনে অপর পক্ষের ওপর হামলা চালায়। দুই পক্ষের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা-ধাওয়া ও সংঘর্ষ শুরু হয়। এ সময় রোগীদের মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। চিকিৎসা বন্ধ হয়ে যায়। দেড় ঘণ্টা ধরে এ অবস্থা চলে। এ সময় মেডিসিন বিভাগের চিকিৎসক আবদুল্লাহ তারেক ভূঁইয়া ছুরিকাঘাত হন। আরও দুজন আহত হন। পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা চালায়। হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মোস্তাফিজুর রহমান ও উপপরিচালক মুশফিকুর রহমান গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন।
একাধিক চিকিৎসক জানান, স্বাচিপের নেতা ও ব্লাড ব্যাংকের সহকারী অধ্যাপক মাজহারুল হক ময়মনসিংহ থেকে কিছু চিকিৎসককে ঢাকা মেডিকেলে আনার চেষ্টা করছেন। এর বিরোধিতা করছে অপর পক্ষ। এটাই গোলমালের কারণ।
আবদুল্লাহ তারেক ভূঁইয়া সাংবাদিকদের বলেন, মাজহারুল হকের সমর্থক ১৫-১৬ জন চিকিৎসক মেডিসিন বিভাগের রেজিস্ট্রার মোস্তাফিজুর রহমান ও অন্তর্বিভাগের চিকিৎসক গোলাম মোস্তফা, চিকিৎসক মারুফ হোসেন চৌধুরীর কক্ষ ভাঙচুর করেন। এতে ক্ষুব্ধ হয়ে মোস্তাফিজুরের সমর্থকেরা মাজহারুল হকের ব্লাড ব্যাংকের পাশের কক্ষে গিয়ে তাঁর নামফলক খুলে ফেলে তালা মেরে দেন। এর জের ধরে মাজহারুলের সমর্থকেরা তাঁদের ওপর হামলা চালান। হাসপাতালের ভারপ্রাপ্ত উপপরিচালক মো. মুশফিকুর রহমান প্রথম বলেন, এ ঘটনায় তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।



লাকসাম মনোহরগঞ্জ নাঙ্গলকোটে ২৪ ঘণ্টার খবরের আপডেট পেতে আমাদের পেজটি লাইক করুন। পেজটি লাইক করতে এখানে ক্লিক করুন। আপনার একটি লাইকই আমাদের অনুপ্রেরণা। undefined