আমাদের নিউজ পোর্টাল ভিজিট করুন ...

কুমিল্লার তৃণমূল নেতাদের ক্ষোভের কথা শুনলেন শেখ হাসিনা

শাহাজাদা এমরান: [সোমবার,২৭ ফেব্রুয়ারি ০১] গতকাল গণভবনে কুমিল্লার তৃণমূলের নেতাদের ক্ষোভের কথা শুনলেন দলের সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এসময় কুমিল্লার বিভিন্ন পর্যায়ের   শতাধিক নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।..

সকাল ১০টা থেকে ৫টা পর্যন্ত তৃণমূলের নেতাদের ক্ষোভের কথা শুনেন শেখ হাসিনা
অনুষ্ঠানে উপস্থিত নেতাদের সূত্রে জানা যায়,অধিকাংশ নেতা কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে দলের প্রার্থীর পরাজয়,এমপিদের অবহেলা এবং মেয়াদ উত্তীর্ণ কমিটি নিয়ে কথা বলেন। তারা বলেন, ত্যাগী নেতারা মূল্যায়ন পাচ্ছেন না, সব জায়গায় হাইব্রিড আওয়ামীলীগের উৎপাত
কুমিল্লা কোতয়ালী আওয়ামীলীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট রুস্তম আলী সংসদ সদস্য হাজী বাহারকে দলের সদস্য পদ দিয়ে মহানগর আওয়ামীলীগের আহবায়ক করার প্রস্তাব করেন
কুমিল্লা কোতয়ালী আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক হাজী ইলিয়াছ মিয়া বলেন, ষড়যন্ত্রের কারণে কুমিল্লা সিটি নির্বাচনে আওয়ামীলীগের প্রার্থীর পরাজয় হয়েছে। তিনি বলেন, ৬জন এমপি কাজ করার পরও দলের প্রার্থীর পরাজয় তৃণমূলের নেতা-কর্মীরা মেনে নিতে পারছে না
বরুড়া আওয়ামীলীগের সভাপতি আবদুল হাকিম বলেন, স্থানীয় এমপি নাছিমুল আলম চৌধুরীর বাধার কারণে তিনি কোনো কাজ করতে পারছেন না। কমিটি করলে এমপি পাল্টা কমিটি করেন,সভা করলে পণ্ড করে দেন।   


অনুষ্ঠানে কুমিল্লা দক্ষিণ জেলার দলীয় এমপি,উপজেলা চেয়ারম্যান,ভাইস চেয়ারম্যান, মেয়র ইউনিয়ন চেয়ারম্যানরা উপস্থিত ছিলেন
আরো বক্তব্য রাখেন হুইপ মুজিবুল হক মুজিব,জোবেদা খাতুন পারুল এমপি, চৌদ্দগ্রাম উপজেলা চেয়ারম্যান আবদুস সোবহান ভূইয়া হাছান,মনোহরগঞ্জ উপজেলা আওয়ামীলীগের আহবায়ক আবুল কাশেম ভূইয়া,লাকসাম উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম আহবায়ক তাজুল ইসলাম,ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি দেওয়ান অ্যাডভোকেট আবদুল জলিল,সদর দক্ষিণ উপজেলা আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আবদুল মালেক,নাঙ্গলকোট উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি মোস্তাফিজুর রহমান লিটন।  
সবার কথা শুনে শেখ হাসিনা বলেন,সবাইকে ঐক্যবদ্ধ ভাবে কাজ করতে হবে। নতুবা পরাজয়ের পর জেল জুলুমের মুখোমুখি হতে হবে। কুমিল্লা সিটি নির্বাচনের দলের দুই বিদ্রোহী প্রার্থীর বিষয়ে শেখ হাসিনা বলেন,তাদেরকে তখন কেনো বসানোর চেষ্টা করা হয়নি।  গাভী বড় না বাছুর বড়। শেখ হাসিনা মজা করে শেষ দিকে হুইপ মুজিবের প্রতি ইঙ্গিত করে বলেন, সবাই মিলে তাকে বিয়ে করাচ্ছেন না কেনো, তাহলে ভোট বাড়তো
অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন- আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী, শেখ ফজলুল করিম সেলিম, আব্দুল লতিফ সিদ্দিকী, সতীশ চন্দ্র রায়, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহাবুব-উল আলম হানিফ, আইন বিষয়ক সম্পাদক আব্দুল মতিন খসরু, বিএম মোজাম্মেল হক, খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, মৃণাল কান্তি দাস প্রমুখ