আমাদের নিউজ পোর্টাল ভিজিট করুন ...

লাকসামে বীজতলা নিয়ে বিপাকে কৃষক


[বৃহ:স্পতিবার, ০৫ জানুয়ারি ২০১] চলতি ইরি-বোরো মৌসুমে ধানের চারা সঙ্কট, শৈত্যপ্রবাহ, ঘন কুয়াশায় বীজতলা নষ্ট, সার, সেচ কৃষি উপকরণের মূল্যবৃদ্ধির কারণে এবার লাকসাম নবগঠিত মনোহরগঞ্জ উপজেলায় ইরি-বোরো আবাদের লক্ষ্যমাত্রা অর্জিত না হওয়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে এবার ইরি-বোরো আবাদ বিপর্যয় বীজতলা নিয়ে এলাকার ক্ষুদ্র প্রান্তিক চাষীরা বিপাকে এবং দিশেহারা হয়ে পড়েছেন কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগ..
সূত্রে জানা যায়, এবার লাকসামে ইরি-বোরো আবাদের জন্য লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয় হাজার ৯০৮ হেক্টর এর মধ্যে হাইব্রিড ধান হাজার ২২৮ হেক্টর উফশী ধান হাজার ৬৮০ হেক্টর এবং হাইব্রিড বীজতলা ৯৫ হেক্টর, উফশী ধান ৩২০ হেক্টর নির্ধারণ করা হয় কিন্তু এবার ইরি-বোরো আবাদের জন্য প্রস্তুতি নিলেও শুরুতে তীব্র শৈত্যপ্রবাহ ঘন কুয়াশায় বীজতলা নষ্ট এবং চারা সঙ্কটের কারণে কৃষকরা বোরো ধান উত্পাদনে সমস্যায় পড়েন





কৃষি বিভাগের পরামর্শমতে আক্রান্ত বীজতলায় সেচ এবং নোইন পাউডার থিওভিট পাউডার মিশিয়ে প্রয়োগ করেও কোনো ফল পাচ্ছে না বীজতলায় চারায় পচন মড়ক দেখা দিয়েছে কৃষকরা জানান, বেশিরভাগ বোরো বীজতলা কম-বেশি কোল্ড ইনজুরিতে আক্রান্ত হয়ে হলুদ বর্ণ ধারণ করেছে অনেক বীজতলায় গোড়া পচনসহ মড়ক দেখা দিয়েছে কৃষি বিভাগ বীজতলা রক্ষায় প্রয়োজনীয় নির্দেশনা দিয়ে মাঠপর্যায়ের সব কর্মকর্তা কর্মচারীকে কৃষকদের সঙ্গে নিবিড়ভাবে কাজ করার নির্দেশ দিয়েছে