আমাদের নিউজ পোর্টাল ভিজিট করুন ...

৪র্থ শ্রেণীর ছাত্রীকে ধর্ষণ! পীরের খাদেম গ্রেফতার! |

ফরহাদ খান বাবুঃ [শুক্রবার, ২০ জানুয়ারি ২০১] নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার চর এলাহী ইউনিয়নে ৪র্থ শ্রেণীর এক ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে পীরের খাদেম মীর হোসেনকে (২৫) আটক করে গণধোলাই দিয়েছে জনতা..
পরে তাকে কোম্পানীগঞ্জ থানা পুলিশের হাতে সোপর্দ করা হয়মো. মীর হোসেনের বাড়ি লাকসাম থানার জাওরা পূর্বপাড়া গ্রামে ঘটনায় নির্যাতিত শিশুটির বাবা বাদী হয়ে ধর্ষক ক্বারী মো. মীর হোসেনকে আসামি করে কোম্পানীগঞ্জ থানায় নারী শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা দায়ের করেছেন বুধবার বিকেলে ক্বারী মো. মীর হোসেনকে ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে হাজির করা হলে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দিতে তিনি তার অপরাধ স্বীকার করেন  এদিকে, বৃহস্পতিবার নোয়াখালী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাশবিক নির্যাতনের শিকার শিশুটির ডাক্তারি পরীক্ষা সম্পন্ন করার নির্দেশ দিয়েছেন আদালত পুলিশ শিশুটির বাবা-মা জানান, সোমবার সকালে একই এলাকার এক পীরের দরবার শরীফের টিউবওয়েলে পানির জন্য যায় শিশুটি সময় মীর হোসেন তাকে ডেকে নিয়ে পানিতে ফুঁ দেয় এবং একপর্যায়ে শিশুটিকে তার কক্ষে নিয়ে গিয়ে দরজা বন্ধ করে ধর্ষণ করে পরে শিশুটি কান্নাকাটি করে বাড়িতে গিয়ে বাবা-মাকে ঘটনার কথা জানালে তারা বিষয়টি এলাকার লোকজনকে জানায় সময় এলাকাবাসী বিক্ষুব্ধ হয়ে পীরের খাদেম মীর হোসেনকে আটক করে গণধোলাই দিয়ে পুলিশে সোপর্দ করে  মামলার তদন্ত কর্মকর্তা কোম্পানীগঞ্জ থানার উপপরিদর্শক (এসআই) আবু তাহের কাছে ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, আসামিকে আটক করা হয়েছে এবং তিনি আদালতে ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জবানবন্দি দিয়েছেন এদিকে, শিশুটির বাবা জানান, পীরের আস্তানায় থাকা মীর হোসেনের সাঙ্গপাঙ্গদের ভয়ে নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন তিনি পরিবারের অন্য সদস্যরা
undefined