আমাদের নিউজ পোর্টাল ভিজিট করুন ...

লাকসামে কন্টিনেন্টাল কুরিয়ার সার্ভিসের গ্রাহক সেবায় ভোগান্তি

জামিউর রহমান: [বুধবার,০১ ফেব্রুয়ারি ২০১] লাকসাম কন্টিনেন্টাল কুরিয়ার সার্ভিসের গ্রাহক সেবায় চরম ভোগান্তি! বিশেষ করে ডুকমেন্টনগদ টাকা আদান-প্রদানের ক্ষেত্রে এ ভোগান্তি চরমে পেঁৗচেছেএছাড়াও রয়েছে বিভিন্ন ডুকমেন্ট আদান-প্রদানের ক্ষেত্রে নির্ধারিত খরচের নিদিষ্ট মূল্যের বাহিরে বেশি টাকা।..
গত ২৩ ডিসেম্বর ঢাকা থেকে আমাদের লাকসাম ব্লগের সম্পাদক সামসুল আলম রাজন একটি গুরুত্ব পূর্ণ ডকুমেন্ট লাকসামে তার ভাইয়ের নিকট পাঠান। ডকুমেন্টটি পরদিন পাবার কথা থাকলেও ৫ দিনেও কোন খবর না পেয়ে লাকসাম কন্টিনেন্টাল কুরিয়ার সার্ভিসে যোগাযোগ করলে তারা কোন সঠিক তথ্য দিতে পারেনি। ঢাকা অফিসে যোগাযোগ করেও কোন লাভ হয়নি। গত ২৫ জানুয়ারী বুধবার দৈনিক ডেসটিনি পত্রিকার ঢাকা অফিস থেকে কন্টিনেন্টাল কুরিয়ারের মাধ্যমে কিছু টাকা পাঠানো হয় লাকসাম প্রতিনিধি চন্দন সাহা নিকটযাহার রশিদ নং- ১৫৬৮২কিন্তু প্রেরনকৃত ওই টাকা গত ২৯ জানুয়ারী রোববার দুপুরে গ্রহণ করতে গেলে কর্তব্যরত স্থানীয় অফিস স্টাফ আমান বলেন যে, ব্যাংক থেকে টাকা তোলা হয়নি বিকেলে পুনরায় এসে বুঝে নেওয়ার জন্য কিন্তু বিধিবাম বিকেলে এসেও টাকা চাইলে ওই অফিস স্টাফ জানান, টাকা আসে নাই আপনি ঢাকা কুরিয়ার সার্ভিসের হেড অফিসের এ নাম্বারে (০১১১৯৬-১৬৪০২০) ফোন করুনক্ষনাত পত্রিকার লাকসাম প্রতিনিধি তার ব্যক্তিগত মুঠোফোন থেকেই নির্ধারিত ফোন নাম্বারে টাকা না পাওয়ার অভিযোগ করেনকিন্তু অভিযোগের প্রেক্ষিতে অফিস থেকে টাকা পাঠানোর রশিদ নাম্বার জেনে জানানো হয় যে, টাকা ২৫ জানুয়ারীই লাকসামে পাঠানো হয়ে গেছেঅতঃপরও টাকা বুঝে না পাওয়ার কারনে কুরিয়ারের স্থানীয় অফিস স্টাফের সাথে প্রতিনিধি ব্যক্তিগত মুঠোফোনের মাধ্যমেই ৪ মিঃ কথোপকোথন শেষে কুরিয়ারের ঢাকা হেড অফিস থেকে গতকাল সোমবার ৩০ জানুয়ারী টাকা বুঝে নেওয়ার জন্য বিনীত অনুরোধ জানান
কিন্তু কুরিয়ার সার্ভিসের নিয়ম অনুযায়ী প্রেরনকৃত টাকাসহ যে কোন ডুকমেন্ট প্রেরণের পরদিনই গ্রাহকের নিকট পৌছে যাওয়ার কথাযার জন্য কুরিয়ারের এ জনপ্রিয় সার্ভিসের কারনেই জনসাধারন সরকারী ডাক বিভাগ বাদ দিয়ে প্রাইভেট কুরিয়ার সার্ভিস কোম্পানী গুলোর মাধ্যমেই ভরসা করছেকিন্তু এমতাবস্থায় চলতে থাকলে কুরিয়ার সার্ভিসও ডাক বিভাগের মত একদিন ভঙ্গুর দশায় পরিণত হবে!
এ অপ্রীতিকর ঘটনা
গুলর পর জনমনে প্রশ্ন যে, অফিসের অভ্যন্তরীন জের সাধারন গ্রাহকরা ভোগ করবে কেন? কারন সাধারন গ্রাহকদের এ ভাবে সময় এবং অর্থ অপচয় করার কোন এখতিয়ার কুরিয়ার সার্ভিসে নেই এখনো এই ব্যবসার জন্য কোনো নির্দিষ্ট নীতিমালা বাস্তবায়িত হয়নি গত বছরের নভেম্বরে নীতিমালা তৈরি হলেও তা কার্যকর হয়নি এই ব্যবসার ধরন বিশেষ হলেও এবং অন্য বিশেষ ব্যবসার জন্য লাইসেন্স থাকলেও এই ব্যবসার জন্য বিশেষ কোনো লাইসেন্স ব্যবস্থা নেই সাধারণ ব্যবসার কিংবা অন্য ব্যবসার ক্যাটাগরিতে লাইসেন্স নিয়ে কুরিয়ার সার্ভিস প্রতিষ্ঠান গড়ে উঠেছে ফলে সেবা গ্রহণকারীরা বিভিন্ন সময় বিড়ম্বনার শিকার হলেও কোনো আইনি ব্যবস্থা নিতে পারছেন না 

undefined